এটি ভারতের সবচেয়ে ছোটো রেলস্টেশন, ৩ কিলোমিটার পথের জন্য যাত্রীদের কোনও খরচ করতে হয় না

Spread the love


ট্রেনে ভ্রমণের অভিজ্ঞতা একেক জনের কাছে একেক রকম। কেউ রেলপথে দীর্ঘ যাত্রা বেশ উপভোগ করেন, কেউ আবার বেশিক্ষণ ট্রেনে থাকতে পারেন না। রেল যাত্রা কখনও কখনও বেশ মজাদার হয়। কখনও আবার হয়ে ওঠে বিরক্তিকর। দীর্ঘ রেলপথ ভালো লাগুক বা না লাগুক, ট্রেনে পা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই যদি নেমে পড়তে হয় তাহলে বিরক্ত তো লাগবেই। আর এই রকম অভিজ্ঞতার মুখোমুখি প্রায় প্রতি দিনই হতে হয় মহারাষ্ট্রের এই এলাকার মানুষগুলিকে। নাগপুর থেকে অজনি, এই দুই স্টেশনের মধ্যে দূরত্ব মাত্র তিন কিলোমিটার। আর এত কম পথ যেমন চোখের নিমেষে যাত্রীরা পেরিয়ে যান, তেমনই এইটুকু পথ পেরোতে তাঁদের কোনও টিকিট কাটতে হয় না। মহারাষ্ট্রের নাগপুর থেকে অজনি পর্যন্ত তিন কিলোমিটার এই রেলপথ ভারতের সবচেয়ে ছোটো রেল লাইন হিসেবে পরিচিত। (All photo credit:istock.com)

প্রকৃতপক্ষে, অজনি এবং নাগপুরের মধ্যে তিন কিলোমিটার দূরত্বের রেললাইনটিকে নাগপুর-অজনি রেললাইন বলা হয়। এই রেললাইনের মূল উদ্দেশ্য হল অজনি থেকে নাগপুরের মধ্যে যোগাযোগ সুগম করা। এই রেললাইনে অন্য কোনও ট্রেন চলে না। শুধু এই একটি মাত্র ট্রেন “নাগপুর-অজনি প্যাসেঞ্জার” চলে।

৯ মিনিটের যাত্রা

আপনিঅজনি-নাগপুর প্যাসেঞ্জার এক্সপ্রেসের গন্তব্য স্থলে পৌঁছোতে সময় লাগে মাত্র ৯ মিনিট। মানে নাগপুর থেকে অজনি বা অজনি থেকে নাগপুর পৌঁছোনো যায় মাত্র নয় মিনিটে। এই ন্যারোগেজ রেললাইনের অভিজ্ঞতা বেশ মজাদার। এ প্রসঙ্গে বলা যায়, এই রেললাইনটি তৈরি হযেছি ব্রিটিশ আমলে। শহরগুলির মধ্যে দূরত্ব কমানোর উদ্দেশ্যেই এই রেল লাইন তৈরি করে ব্রিটিশরা। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এই রেল লাইনের উচ্চতা প্রায় ৭৫০ মিটার। অজনি-নাগপুর প্যাসেঞ্জার ট্রেনের মাত্র নয় মিনিটের যাত্রাপথে বাইরে দৃশ্য অপূর্ব সুন্দর। আর এই সুন্দর দৃশ্যে দেখা যাবে বিনে পয়সায়।

সিকিমের এই ৪ গ্রামের মতো সুন্দর স্থান সারা বিশ্বে মেলা ভার, দেখার পর বিদেশ যেতেও মন চাইবে না

টিকিট লাগবে না

টিকিট লাগবে না

ভারতের এই ছোট্টো রেল লাইনে টিকিটের প্রয়োজন হয় না। এটি নাগপুর এবং অজনির মধ্যবর্তী ৩ কিলোমিটার পথকে জুড়ে দেয়। এত কম দূরত্ব হওয়ায় সরকার এর জন্য কোনও চার্জ নেয় না। ট্রেনে ওঠার র চোখের নিমেষে গন্তব্যস্থলে পৌঁছে যান যাত্রী।

এখানে মজার পরিবেশ উপভোগ করুন

এখানে মজার পরিবেশ উপভোগ করুন

রেলপথের সবুদ দৃশ্য দেখতে দারুণ লাগে। ট্রেন লাইনটি পুকুর এবং মাঠের মধ্য দিয়ে যায়। আর সেই সময় স্থানীয়দের দৈনন্দিন জীবনের চলমান দৃশ্য দেখতে দারুণ লাগে।

দেশের এই ৫ স্থান মহিলা পর্যটকদের জন্য বেশ নিরাপদ, বন্ধুদের সঙ্গে বা সোলো ট্র্যাভেল করতে পারেন নির্ভাবনায়

অজনির পর্যটন স্থান

অজনির পর্যটন স্থান

এবার একটু অজনি শহরের কথা বলা যাক। অজনি মহারাষ্ট্রের একটি ছোটো শহর। এখানে প্রধানত ধান চাষ করা হয়। এছাড়াও এখানে বেশ কিছু দর্শনীয় ধর্মীয় স্থান রয়েছে, যেগুলি পর্যটকদের বেশ ভালো লাগতে পারে। এর মধ্যে অন্যতম জংলি দেবী মন্দির। এই মন্দির তার শান্তিপূর্ণ পরিবেশ এবং সুন্দর শিল্পকর্মের জন্য বিখ্যাত। অজনিতে লক্ষ্মীনারায়ণ মন্দির নামে একটি ধর্মীয় স্থানও রয়েছে।



Source link